Today is  
 
Untitled Document
শিরোনাম : || শান্তিতে নোবেল পাওয়া উচিৎ শেখ হাসিনার: অর্থমন্ত্রী      || খালেদার মুক্তি নিয়ে মাঠ পর্যায়ে ক্ষোভ      || আইনের বিরোধিতায় সড়ক অচল, ভোগান্তি      || জ্বালানী তেলের মুল্যবৃদ্ধিতে বিক্ষোভে নিহত সংখ্যা দাড়িয়ে ১০৬      || পাহাড়ে সংঘাতের নেপথ্যে      || আবুধাবিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ      || লামায় বন্য হাতি হত্যার ঘটনায় মামলা      || কক্সবাজারে সিপ্লাস টিভির বিশেষ প্রতিনিধি এহসান আল কুতুবী      || ভার‌তের আনুগত্য আমরা চাই না: ওবায়দুল কা‌দের      || লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা      || রোহিঙ্গা ইস্যুতে ডিসেম্বরে মিয়ানমারের বিচার শুরু      || `‌মিল-মাঠ পর্যায়ে মজুদ আছে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টন লবণ’      || পেকুয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত নিহত      || বিএনপি থেকে এখনই পদত্যাগ নয়      || রোহিঙ্গা ক্যাম্প নিয়ন্ত্রণে একাধিক গ্রুপ, ধরা পড়েনি শীর্ষস্থানীয়রা     
বিপন্ন সেন্টমার্টিন
প্রকাশ: 2019-10-14     ভয়েস প্রতিবেদক, টেকনাফ কক্সবাজার ভয়েস

সেন্টমার্টিন দ্বীপইটের দালানকোঠার ভারে  দিন দিন সেন্টমার্টিন বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এভাবে চলতে থাকলে দ্বীপ হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সেখানকার বাসিন্দারা। দ্বীপে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা আবাসিক হোটেল ভেঙে ফেলতে দুই বছর আগে নির্দেশ দেন আদালত। তা বাস্তবায়ন তো দূরের কথা, বরং দিন দিন দ্বীপে বাড়ছে দালানকোঠার সংখ্যা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দ্বীপের জেটিঘাট থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে পশ্চিমপাড়া। সেখানে সাবেক ইউপি সদস্য রশিদ আহমদের ছেলে মোহাম্মদ বেলাল উদ্দিনের নতুন বাড়ি নির্মাণ করতে দেখা যায়। বেশ কয়েজন শ্রমিক প্রবালের টুকরাগুলো দিয়ে বানাচ্ছেন সীমানা প্রাচীর। পাঁচটি কক্ষের মধ্যে দু’টি কক্ষের দেয়াল তোলা হয়ে গেছে। শুধু তাই নয়, এভাবে দ্বীপের পশ্চিম, মাঝার ও কোনাপাড়ায় আরও বেশ কয়েকটি দালান তুলতে দেখা গেছে। এর মধ্যে সরকারি-বেসরকারি কর্তৃপক্ষের পাকা ভবনও রয়েছে। এছাড়া দ্বীপে অবাধে আহরণ হচ্ছে শামুক-ঝিনুক-পাথর।

সেন্টমার্টিনে নতুন দালানকোঠা নির্মাণ হচ্ছেসৈকত সংলগ্ন এলাকায় হোটেল, মোটেল, রেস্টুরেন্ট ও দোকান নির্মাণের জন্য কেয়াবন ও ঝোপঝাড় কেটে ফেলা হচ্ছে। হোটেলের জেনারেটরের আওয়াজে দ্বীপে শব্দ দূষণ হচ্ছে। পর্যটন মৌসুমে মানুষের অতিরিক্ত চাপে পানি ও পরিবেশ দূষণে হুমকিতে পড়ে দ্বীপের প্রায় ৬৮ প্রজাতির প্রবাল।

বাড়ি নির্মাণের বিষয়ে বেলাল উদ্দিন বলেন, ‘দ্বীপ কর্তৃপক্ষের কাছ অনুমতি নিয়ে দালান নির্মাণ করছি। দ্বীপে শুধু আমি একা এ কাজ করছি না। এখানে আরও অনেকে দালান নির্মাণ করছেন। তাছাড়া এখানে বিশাল ভবন নির্মাণ হয়েছে। এতে দ্বীপের কিছু সমস্যা হয়নি। সামান্য এই দালান নির্মাণ করলে দ্বীপের বড় ক্ষতি হবে না।’

নতুন দালানকোঠা নির্মাণের সামগ্রীদ্বীপের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানায়, দ্বীপের উত্তর অংশের এক বর্গকিলোমিটার এলাকার মধ্যে গড়ে উঠেছে ৮৪টিরও বেশি হোটেল-মোটেল ও ৩০টি রেস্টুরেন্ট। গত পাঁচ বছরে ৫৬টির মতো বহুতল হোটেল তৈরি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, ‘দালানের ভারে দিন দিন দেবে যাচ্ছে সেন্টমার্টিন। ফলে সামান্য জোয়ার পানি বাড়লে দ্বীপের চার দিকে ভেঙে যাচ্ছে। গত দুই বছরে দ্বীপের দক্ষিণপাড়া, হরা বনিয়া, গলাচিপা, জাদির বিল, কোনাপাড়া, উত্তর বিল, পশ্চিমপাড়া, ডেইলপাড়াসহ ১৫টি জায়গায় দেড় শতাধিক ঘর ভেঙে গেছে।’

নতুন দালানকোঠা নির্মাণের সামগ্রীকেউ দ্বীপ নিয়ে চিন্তা করছে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘শুধু পর্যটন অর্থনীতি সুফল আদায়ের লোভে একের পর এক ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে দ্বীপ একদিন হারিয়ে যাবে।’ 

স্থানীয়দের ভাষ্য মতে, সেন্টমার্টিনে স্থাপনা নির্মাণ করতে গেলেই রাজনৈতিক নেতাকর্মী, জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কিছু কর্মকর্তার একটি চক্রকে ম্যানেজ করতে হয়। তাদের যোগসাজশে টেকনাফ থেকে প্রায় ৩৪ কিলোমিটারের সমুদ্র পাড়ি দিয়ে ইট, লোহা, সিমেন্ট, বালুসহ যাবতীয় নির্মাণ সামগ্রী পৌঁছে যায় সেন্টমার্টিনে। সংশ্লিষ্ট দফতর ম্যানেজ থাকায় এসব নির্মাণসামগ্রী নির্বিঘ্নে নির্মাণ স্থলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কোনও বাধা ছাড়াই গড়ে উঠছে হোটেল, কটেজ ও রেস্তোরাঁ। আবার অনেক সময় দ্বীপের তিন দিকে ছড়িয়ে থাকা প্রাকৃতিক পাথর ব্যবহৃত হচ্ছে অবকাঠামো তৈরিতে। সেন্টমার্টিনের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় দায়ের করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১১ সালে দ্বীপে পাকা স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ এবং নির্মিত সব স্থাপনা উচ্ছেদ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোটের আপিল বিভাগ। নির্দেশ অনুযায়ী, সেন্টমার্টিনে ছোট কিংবা বড় কোনও স্থাপনাই নির্মাণের সুযোগ নেই। কিন্তু তারপরও সেখানে গড়ে উঠছে একের পর এক স্থাপনা।

সেন্টমার্টিনে গড়ে ওঠা হোটেলসেন্টমার্টিন হোটেল মালিক সমিতির সাবেক সভাপতি মুজিবুর রহমান বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা পর তারা রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। এখন বিষয়টি আদালতের মাধ্যমের নিষ্পত্তি হবে। নিষেধাজ্ঞার পর থেকে তারা নতুন কোনও অবকাঠামো নির্মাণ করেননি। আগে যেসব হোটেল ছিল, সেগুলোতে কার্যক্রম চলছে।

পরিবেশ বিষয়ক সংস্থা ইয়ুথ এনভায়রনমেন্ট সোসাইটির (ইয়েস) কক্সবাজারের প্রধান নির্বাহী এম ইব্রাহিম খলিল মামুন বলেন, ‘দুই বছর আগে দ্বীপে পরিবেশগত ছাড়পত্র ছাড়া গড়ে ওঠা আবাসিক হোটেল-মোটেলসহ ১০৬টি ভবন ভাঙার নির্দেশনা থাকলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। আদালতের সুস্পষ্ট নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকা সেন্টমার্টিনে গড়ে উঠছে নানা স্থাপনা। এ বিষয়ে কেউ গুরুত্ব দিচ্ছে না। সরকারের কঠোর পদক্ষেপ প্রয়োজন এ বিষয়ে।’

সেন্টমার্টিনে গড়ে ওঠা হোটেলটেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবিউল হাসান বলেন, ‘সেন্টমার্টিনে নতুন করে কোনও দালানকোঠা নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না। যারা এ কাজ করছেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পরিবেশ অধিদফতর কক্সবাজার কার্যালয়ের উপপরিচালক মোহাম্মদ নূরুল আমিন বলেন, ‘সেন্টমার্টিনে নতুন করে দালানকোঠা নির্মাণের সুযোগ নেই। যারা দ্বীপে এসব কাজ করছেন, তাদের বিরুদ্ধে পরিবেশ আইনে মামলা করা হবে। আগে যেসব হোটেল-মোটেল ভাঙার নির্দেশনা ছিল, সেসব হোটেল মালিক কর্তৃপক্ষ আদালতে আপিল করেছে। এজন্য আগের নির্দেশনা কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায়, তা দেখছি আমরা।’

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যান লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) ফুরকান আহমেদ বলেন, ‘সেন্টমার্টিন নিয়ে সরকারের নির্দেশনা রয়েছে। সেগুলো কেউ অমান্য করলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

কক্সবাজার ভয়েস
`‌মিল-মাঠ পর্যায়ে মজুদ আছে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টন লবণ’

পেকুয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত নিহত

রোহিঙ্গা ক্যাম্প নিয়ন্ত্রণে একাধিক গ্রুপ, ধরা পড়েনি শীর্ষস্থানীয়রা

পেকুয়ায় আওয়ামী লীগের সম্মেলন নিয়ে ব্যস্ত বিএনপি!

গাজীপুর থেকে অপহৃত পিএসসি শিক্ষার্থী কক্সবাজারে উদ্ধার : আটক ৪

সীমান্তে বিজিবির উপর হামলা: দুই আসামী 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত

রামু’র কাঁনা রাজার সুড়ঙ্গ পর্যটকদের নতুন আকর্ষণ

টেকনাফে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত

জেলা ছাত্রলীগের আন্তঃ উপজেলা ফুটবলের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

শহরের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী নুর জোহারের জবাই করা মৃতদেহ উদ্ধার

শান্তিতে নোবেল পাওয়া উচিৎ শেখ হাসিনার: অর্থমন্ত্রী
খালেদার মুক্তি নিয়ে মাঠ পর্যায়ে ক্ষোভ
আইনের বিরোধিতায় সড়ক অচল, ভোগান্তি
জ্বালানী তেলের মুল্যবৃদ্ধিতে বিক্ষোভে নিহত সংখ্যা দাড়িয়ে ১০৬
পাহাড়ে সংঘাতের নেপথ্যে
আবুধাবিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ
লামায় বন্য হাতি হত্যার ঘটনায় মামলা
কক্সবাজারে সিপ্লাস টিভির বিশেষ প্রতিনিধি এহসান আল কুতুবী
ভার‌তের আনুগত্য আমরা চাই না: ওবায়দুল কা‌দের
লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা
রোহিঙ্গা ইস্যুতে ডিসেম্বরে মিয়ানমারের বিচার শুরু
`‌মিল-মাঠ পর্যায়ে মজুদ আছে সাড়ে ৬ লাখ মেট্রিক টন লবণ’
পেকুয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত নিহত
বিএনপি থেকে এখনই পদত্যাগ নয়
রোহিঙ্গা ক্যাম্প নিয়ন্ত্রণে একাধিক গ্রুপ, ধরা পড়েনি শীর্ষস্থানীয়রা
মেসির গোলে সম্মান বাঁচলো আর্জেন্টিনার
 

উপদেষ্টা সম্পাদক: আবু তাহের
সম্পাদক: বিশ্বজিত সেন
প্রকাশক: আবদুল আজিজ

 

কক্সবাজার প্রেসক্লাব ভবন (২য় তলা),
শহীদ সরণি (সার্কিট হাউস রোড), কক্সবাজার।
ফোন:
০১৮১৮-৭৬৬৮৫৫, ০১৫৫৮-৫৭৮৫২৩।


ইমেইল :

news.coxsbazarvoice@gmail.com
About Coxsbazar Voice
Advertisement
Contact
Web Mail
Privacy Policy
Terms & Conditions
কক্সবাজার ভয়েস পত্রিকার কোন সংবাদ,লেখা,ছবি বা কোন তথ্য পূর্ব অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
All rights reserved © 2019 COXSBAZAR VOICE Developed by : JM IT SOLUTION