Today is  
 
Untitled Document
শিরোনাম : || চিত্র নায়ক শাকিব খানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা      || ‘‌রোহিঙ্গা ইস্যুতে আইসিসির রায় মানতে বাধ্য সব দেশ'      || বিক্ষোভকারীদের প্রতি হুঁশিয়ারি ইরানি প্রেসিডেন্টের      || বাংলাদেশে আরব আমিরাতের আরও বড় বিনিয়োগের প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর      || আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল: জনবল সংকটে তদন্ত বিঘ্নিত!      || পেঁয়াজ সিন্ডিকেটের নেপথ্য সন্ধানে গোয়েন্দারা      || দস্যু-অস্ত্র কারিগরদের কলঙ্কমোচন ২৩ নভেম্বর: থাকছে ইয়াবা কারবারিরাও      || শাকিব খান ছাড়াই বুবলী, নায়ক নিরব!      || চট্টগ্রামে বিস্ফোরণ গ্যাস পাইপে নাকি সেপটিক ট্যাংকে!      || হলি আর্টিজান হামলা মামলার রায় ২৭ নভেম্বর      || সীমান্তে বিজিবির উপর হামলা: দুই আসামী 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত      || চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণ, নিহত ৭      || শ্রীলঙ্কার নির্বাচন: এগিয়ে আছে মাহিন্দা      || টেস্টের আগেই মন ভেঙে গেছে-বিসিবি প্রধান      || সৌদিতে নারী কর্মীদের নির্যাতন: বিপাকে সরকার     
কেন এত সহিংসতা; মানুষ কেন আজ এত অসহিষ্ণু....
প্রকাশ: 2019-10-26     মাহবুবা সুলতানা শিউলি কলাম

" তুমি অধম তাই বলিয়া আমি উত্তম হইবনা কেন ,,- সবসময় এই নীতিতেই মানুষ চলতে চায় কিন্তু অনেক সময় এই নীতিতে চললে শুধুই দুর্বল ভাবা হয়! তাই মাঝেমাঝে " শক্তের ভক্ত নরমের যম,, -এ নীতিও অনুসরণ করতে হয়। কেবল শারীরিকভাবে আক্রমনই সহিংসতা নয়, ভাষাও সহিংসতার একটা প্রকাশ। আপনার ভাষাও চিহ্নিত করে আপনি সহিংস কিনা; আপনার আশে পাশে, ফেসবুকে, পত্রিকার পাতায়, খুব সাজানো অনুষ্ঠানে কে কী বলছেন সেটা দেখুন তা হলেই বুঝতে পারবেন কোথা থেকে সমাজে অসহিষ্ণুতা এবং সহিংসতা বাড়ছে। কখনও কখনও ভাষাগত আক্রমণ শারীরিক আক্রমনের চেয়েও মারাত্মক। মানুষ আজ বড় অসহিষ্ণু। নিজেকে কোনভাবেই নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারছেনা। কিন্তু কেন? দুঃসময়ের এই লগ্নে কবি নজরুলের একটি কবিতার দুটো লাইন হৃদয়ে বেজে উঠছে, " আমরা সবাই পাপী, আপন পাপের বাটখারা দিয়ে অন্যের পাপ মাপি "। আমরা নিজেদের দোষ দেখিনা শুধু অপরের দোষগুণ নিয়েই ব্যস্ত থাকি। ফেসবুককে প্রথমে আমরা একপ্রকার বিনোদনই ভাবতাম। বন্ধুবান্ধব পরিচিত মহলদের ফেসবুকে দেখলে ভালো লাগতো। কিন্তু এখন সেইটা নেই। সেধরণের পোস্ট এখন প্রাইভেসিতে অনলি মি বা অনলি ফ্রেন্ড দিয়ে পোস্ট করতে হয়। পাবলিকলি পোস্ট করলে কে কি কমেন্ট করে, সেটাও একটা চিন্তার বিষয়। ফেসবুক এখন ব্যক্তিগত জীবনেও অনেক প্রভাব ফেলছে। অথচ একটা সময় আমরা ফেসবুকে গল্প, কবিতা, ফিচার, প্রবন্ধও পড়তাম। ভালো লাগতো। তারপর আসতে আসতে ফেসবুক এমন এক অবস্থায় চলে গেছে এখন এটা রাজনীতির জায়গা। কার কি অবস্থান এখন যেন ফেসবুকই তা নির্ধারণ করে। এখানে ভাষার দ্বারা পরস্পরকে আক্রমণ, সহিংসতা এমনকি একটু হিসাবের বাহিরে লিখলেই জান খতম। এখন ফেসবুকই নির্ধারণ করছে, কে বাঁচবে? কে মরবে? একটু এদিক-সেদিক লিখেছেন তো খবর আছে!? গতবছর ভুল চিকিৎসার কারণে অকালে ঝরে যাওয়া সাংবাদিক কন্যা শিশু রাইফাকে নিয়ে বার বার লিখতে গিয়ে আমার ফেসবুক আইডি হ্যাক করে সব ফ্রেন্ডদের ট্যাগ করে এত জঘন্য পোস্ট আমার ওয়াল থেকে করা হয়েছিল যা কল্পনাও করা যায় না। সৌভাগ্যক্রমে ২০-২৫ মিনিটের মধ্যে আইডি উদ্ধার করে পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছিলাম। তারপর একটু হিসেবনিকেশ করে লিখি। বেশ কিছুদিন ধরে বার বার লিখতে চেয়েও মন বাঁধা দেয়! লিখতে পারি না !!!!! এই আমিকে আমি নিজেই চিনতে পারছিনা। নিজেকে নিজে প্রশ্ন করি, কেন আমি লিখছি না বা লিখতে পারছিনা!?

"অসির চেয়ে মসি বড়" - এটাই বিশ্বাস করি। তাই সমাজের নানান অসংগতি দেখলে আমার কলম কোনো বাঁধা মানেনা। বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারিনা। একজন সন্তানকে তিলে তিলে কত কষ্ট করে বাবা-মা বড় করে তুলেন। আর এরকম হীরের টুকরার পিছনে সেই বাবা-মায়ের শ্রম, ত্যাগ কতটা হতে পারে তা চিন্তা করা দুঃসাধ্য। এই পিতা-মাতার পায়ে একটি দেশ বিক্রি করে সব অর্থ প্রদান করলেও তাঁদের কলিজাটার ছিটেফোঁটার সমমুল্যও হবেনা। কোটিতে একজন আবরার ফাহাদ জন্মায়। বাংলাদেশে এমন কোনো বাবা-মা নেই যে তাঁদের সন্তানকে বুয়েটে পড়াতে চাননা! তাঁদের স্বপ্নের জগতে একটিবারের জন্য হলেও তাঁদের সন্তানদের অবশ্যই বুয়েটে পড়াতে চেয়েছেন। এবং প্রতিটি মেধাবী শিক্ষার্থীরও কলেজ জীবন শেষে পরবর্তী প্রথম পছন্দই বুয়েট। কিন্তু দেশের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরাও আজ হিংস্র জানোয়ার হয়ে গেছে। গুটি কয়েকজনের জন্যে আজ প্রতিষ্ঠানটিও কলংকিত। তিলে তিলে গড়ে তুলা সন্তানকে এখানে পাঠাতে আজ বাবা-মা দ্বিতীয়বার চিন্তা করবেন, যা আগে কখনও স্বপ্নেও ভাবা যেতো না! যাই হোক, নোংরা রাজনীতির অন্তরালে আবরার হত্যাকান্ডের ঘটনাটি যেন ধামাচাপা না পড়ে। আমরা আবরার হত্যাকান্ডের সঠিক বিচার চাই। অপ্রিয় হলেও সত্য, একজন আবরারকে হারিয়েছি বলেই আজ আমরা বুয়েটের ভিতরকার জঘন্য সব বিষয়গুলো সবাই জানতে পারছি। আশাকরি বুয়েট থেকে এসব নির্মুল হবে স্বল্পতম সময়ের মধ্যেই। আর এসব জঘন্যতা নির্মুলের জন্য প্রয়োজন ক্ষমতালোভীদের অপসারণ করে প্রকৃত মেধাবী বিবেকবানদের নিয়োগ। আর দুঃখজনক হলেও একথাও কেউ অস্বীকার করতে পারবেনা আবরারের সাথে সাথে আরও বিশটি মূল্যবান সম্পদকে হারিয়েছে এদেশ!!!!!

কিন্তু কেন???

অথচ এ সম্পদগুলো যখন তাদের বাবা-মা, শিক্ষকদের অধীনে ছিলো তখন তো তারা সোনার টুকরা ছেলে হয়ে দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে পড়াশোনার সুযোগ পেয়েছিলো কিন্তু বুয়েটে এসে ওরা নষ্ট হয়েছে!!! হত্যাকারী হয়েছে!!! এর দায়ভার কে নিবে??? এই বিশটি সম্পদ তৈরিতে এদেশ, তাদের পিতামাতা, শিক্ষকদের সারাজীবনের শ্রম মাটির সাথে মিশে গেলো! অথচ ওদের হবার কথা ছিলো, ইঞ্জিনিয়ার, বিজ্ঞানী, গবেষক। হায়রে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যেখানে এত বড় সম্মানের চেয়ারের চেয়ে অন্যকোনো পদের আশায় উপাচার্যের চেয়ার নির্ধিদায় ছাড়তে রাজি! সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠগুলোতে এসে সেরকম শিক্ষকদের দেখতে দেখতে তারাও তাদের মেধা কোথায় ব্যবহার করবে তা ভুলে যায়!!!! সত্যিই দুর্ভাগা এদেশ। আমরা নিশ্চয় এরকম দেশ চাইনি!?!দেশের সম্পদগুলো এভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে!!! একটি দেশকে ধ্বংসের জন্য শিক্ষাব্যবস্থাটা নষ্ট করাই যথেষ্ট।

অাবরার হত্যার ইস্যুর নিচে যেন চাপা পড়েগেছে দুর্নীতিবাজ ক্যাসিনো সম্রাটদের কাণ্ডকীর্তি ও দুর্নীতির বিরোধী সাড়াশি অভিযান!!!

শুধু বুয়েট নয় র‍্যাগিং নামক এই জঘন্য প্রথা প্রায় সব হোস্টেলেই হয়ে থাকে। বাংলাদেশের ক্যাডেট কলেজগুলোতে র‍্যাগিং এর নামে যা হয় তা কল্পনাতীত। শিক্ষার্থী কেন আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়, কেন মানসিক রোগীতে পরিণত হয় !!! র‍্যাগিং যখন চরম আকার ধারণ করে তখনই এসব ঘটনাগুলো ঘটে। কিন্তু তা প্রকাশিত হয়না এবং খুব সহজেই সেগুলো ধামাচাপা দেয়া হয়। কেউ মুখ খুলতেও সাহস পায়না। কিন্তু কেন? একটা বাচ্চা কতটা মেধাবী হলে, কত কষ্ট-শ্রম-ধৈর্যের পর ক্যাডেট কলেজে টিকে কিন্তু র‍্যাগিং এ সফলভাবে উত্তীর্ণ হতে পারলেই যেন সেসব শিক্ষার্থীর ক্যাডেটে শিক্ষাজীবন শুরু করতে পারে। তারপরও বাবা-মায়েরা আশায় বুক বাঁধে। বুয়েটের সাথেসাথে ক্যাডেট কলেজগুলো সহ যেসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে র‍্যাগিং নামক এই জঘন্য প্রথা প্রচলিত আছে তা যেভাবেই হোক বন্ধ করতে হবে।

যে সন্তানকে বাবা-মা কত যত্নের সাথে আদর-সোহাগ-শাসনের সাথে বড় করে তুলেছে অচেনা পরিবেশে হঠাৎ র‍্যাগিং নামক বীভৎসতা তাদের কচি দেহ মনকে দূর্বিষহ করে তুলে। আর যারা সহ্য করতে পারেনি তারা হয় মানসিক রোগে ভুগেছে নতুবা আত্মহত্যা করেছে কিন্তু কাউকে বলার মত/বিচার দেওয়ার মত সুযোগও পায়নি। এবং এ বিষয়টি অপেন সিক্রেট। কর্তৃপক্ষ দেখেশুনেও অজানা কারণে চুপ করে থাকেন। না দেখা/জানার ভান করে থাকেন।

প্রিয় পাঠক প্রসঙ্গ এবার অন্যদিকে ঘুরিয়ে দিই। প্রতিদিনই নিত্যনতুন চমকপ্রদ নিউজ আমরা পড়ছি। ৮-১০ লাখ টাকা ঘুষ দিয়ে কেউ যখন চাকরি পায় তখন ওদের মানসিকতাই ওরকম হয়, যে টাকা ইনভেস্ট করেছি সেইটা আগে উদ্ধার করি।  আর ততদিনে সে চাকুরিজীবী ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ, বিবেকহীন কীটে পরিণত হয়। আর এভাবেই সমাজটা রসাতলে চলে যাচ্ছে। ধনী আরো ধনী হচ্ছে, গরীব আরো গরীব হচ্ছে। অথচ এদেশে যেসকল ধনকূবের আছে তারা একেকজন একেকটা বাংলাদেশ কিনতে পারবে। হায়রে এদেশে এখনও নাকি রাস্তায় রাস্তায় মানুষ ঘুমায়। খাদ্য, চিকিৎসা, বাসস্থানের অভাবে এখনও মানুষ মরছে। আজকাল পত্রিকা পড়তে ভয় পাই। কি না কি ভয়ংকর নিউজ আসে!  অবশ্য তার আগেই ফেসবুকেই সব পড়া হয়ে যায়। আজকালকার তরতাজা নিউজগুলো হলো, বাবা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে নির্মমভাবে বর্বরতার সর্বোচ্চ প্রয়োগপদ্ধতি ব্যবহার করে সন্তানকে খুন করে। মা পরকীয়ায় আসক্ত হয়ে শিশুকন্যা ও স্বামীকে জবাই করে। পিতা নিজ কন্যাকে ধর্ষণ করে। শিক্ষক ছাত্রাবাসের ছাত্রকে বলাৎকার করে। নিরপরাধ কোন কিশোরীকে বাসায় একা পেয়ে ধর্ষণ করে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়! গ্রামেগঞ্জেও শিশু অপহরণ করে মুক্তিপণ না পাওয়ায় হত্যা !!!! আপন চাচা সাত বছরের ছোট্ট ভাতিজিকে ধর্ষণ করে, বিলাসবহুল জীবন বিসর্জন দিয়ে গরীবের বিনা পয়সায় চিকিৎসা দিবে বলে দেশে ফিরে আসা সুচিকিৎসক খুন হয়, যারা লাখটাকা বেতন পায় তারাও দফায় দফায় অনশন করে আর প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষকরা আন্দোলন / অনশন করলে পুলিশের লাঠিচার্জ লাঠির বাড়ি খায় !!!!

অফ্ খুন, ধর্ষণ, অরাজকতা

------খুন, ধর্ষণ, অরাজকতা

-------খুন, ধর্ষণ, অরাজকতা

আর কত?????


আবারো ফেসবুকে লেখা নিয়ে দেশে অস্থিতিশীল অবস্থা বিরাজমান। অসাম্প্রদায়িক এই দেশে আবারও কি জানি কি হচ্ছে!!!


আর বেশি কিছু লিখতে চাইনা। এ সবকিছু দেখতে দেখতে স্বতঃস্ফূর্ত এই আমিও যেন দিন দিন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছি। মূল্যবান একটা কথা বলে ইতি টানতে চাই।


" সাবধান! ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করো না।

এ বাড়াবাড়ির ফলে তোমাদের পূর্বে অনেক জাতি ধ্বংস হয়ে গেছে " _বিদায় হজ্জের ভাষণে মহানবী (সাঃ)।


মহান আল্লাহ্ সবাইকে ভাল রাখুক, সুস্হ বোধশক্তি দিক।

________________________________

লেখক: মাহবুবা সুলতানা শিউলি

সদস্য, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ

কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

ইমেইল : mahbubasheuly82@gmail.com

কলাম
রেল কবে চলবে?

ধূসর আকাশ, বিষাক্ত বাতাস

অবহেলিত রেলের প্রয়োজন ‘আদর’

নির্বাচনের পরও কি ব্রেক্সিট প্রশ্নে গণভোট অনিবার্য?

কে ইয়াবাখোর?

আমাদের শিক্ষাঙ্গনেও মহাবিপদ সংকেত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভি সি নিয়ে ছিঃ ছিঃ

ক্রিকেটে নতুনরা জানান দিচ্ছে আমরা আসছি

জাতীয় চার নেতা: সিদ্ধান্ত নিতে না পারা

জান্নাতীর মুখের হাসি

চিত্র নায়ক শাকিব খানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা
‘‌রোহিঙ্গা ইস্যুতে আইসিসির রায় মানতে বাধ্য সব দেশ'
বিক্ষোভকারীদের প্রতি হুঁশিয়ারি ইরানি প্রেসিডেন্টের
বাংলাদেশে আরব আমিরাতের আরও বড় বিনিয়োগের প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল: জনবল সংকটে তদন্ত বিঘ্নিত!
পেঁয়াজ সিন্ডিকেটের নেপথ্য সন্ধানে গোয়েন্দারা
দস্যু-অস্ত্র কারিগরদের কলঙ্কমোচন ২৩ নভেম্বর: থাকছে ইয়াবা কারবারিরাও
শাকিব খান ছাড়াই বুবলী, নায়ক নিরব!
চট্টগ্রামে বিস্ফোরণ গ্যাস পাইপে নাকি সেপটিক ট্যাংকে!
হলি আর্টিজান হামলা মামলার রায় ২৭ নভেম্বর
সীমান্তে বিজিবির উপর হামলা: দুই আসামী 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত
চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণ, নিহত ৭
শ্রীলঙ্কার নির্বাচন: এগিয়ে আছে মাহিন্দা
টেস্টের আগেই মন ভেঙে গেছে-বিসিবি প্রধান
সৌদিতে নারী কর্মীদের নির্যাতন: বিপাকে সরকার
মওলানা ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
 

উপদেষ্টা সম্পাদক: আবু তাহের
সম্পাদক: বিশ্বজিত সেন
প্রকাশক: আবদুল আজিজ

 

কক্সবাজার প্রেসক্লাব ভবন (২য় তলা),
শহীদ সরণি (সার্কিট হাউস রোড), কক্সবাজার।
ফোন:
০১৮১৮-৭৬৬৮৫৫, ০১৫৫৮-৫৭৮৫২৩।


ইমেইল :

news.coxsbazarvoice@gmail.com
About Coxsbazar Voice
Advertisement
Contact
Web Mail
Privacy Policy
Terms & Conditions
কক্সবাজার ভয়েস পত্রিকার কোন সংবাদ,লেখা,ছবি বা কোন তথ্য পূর্ব অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
All rights reserved © 2019 COXSBAZAR VOICE Developed by : JM IT SOLUTION