Untitled Document
শিরোনাম : ||   মাছ উৎপাদনে বিশ্বের ৪র্থ স্থানে বাংলাদেশ- জেলা মৎস্য কর্মকর্তা      ||   জেলার ৫ আ’লীগ নেতাসহ সারাদেশে ২শ’ নেতাকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত      ||   রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন      ||   রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীরা প্রশিক্ষিত হচ্ছে      ||   মিন্নির ৫ ‍দিনের রিমান্ড মন্জুর      ||   মিয়ানমারের সেনাপ্রধানকে নিষিদ্ধ করলো যুক্তরাষ্ট্র      ||   নুসরাতের দেওয়া দুই পরীক্ষার ফল ‘এ’ গ্রেড      ||   চট্টগ্রাম বোর্ডে কমেছে পাসের হার:বেড়েছে জিপিএ-৫      ||   এইচএসসিতে পাসের হার ৭৩.৯৩ শতাংশ      ||   ৭১ বছর সংসার একই দিনে মৃত্যু      ||   মিয়ানমারের ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের      ||   টেকনাফে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নারী সহ নিহত ৩      ||   ইতিহাসে কী নামে বেঁচে থাকবেন এরশাদ?      ||   শূন্য ঘোষণা এরশাদের সংসদীয় আসন      ||   এইচএসসির ফল প্রকাশ আজ     
মিয়ানমারে ব্যর্থতার দায় স্বীকার জাতিসংঘের
প্রকাশ: 2019-06-18     ডেস্ক নিউজ আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর সামরিক অভিযানে সৃষ্ট সংকটে নিজেদের ব্যর্থতা স্বীকার করেছে জাতিসংঘ। সংস্থাটি জানিয়েছে তারা, এই সংকট মোকাবিলায় ‘পদ্ধতিগতভাবে ব্যর্থ’ হয়েছে। সংস্থাটির অভ্যন্তরীণ এক প্রতিবেদনে বলা হয়, রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় তাদের ঐক্যবদ্ধ কোনও কৌশল ছিলো না। এছাড়া নিরাপত্তা পরিষদের পর্যাপ্ত সমর্থনেরও অভাব ছিলো। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পূর্বপরিকল্পিত ও কাঠামোগত সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ৭ লাখেরও বেশি মানুষ। জাতিগত নিধনের ভয়াবহ বাস্তবতায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বড় অংশটি বাংলাদেশে পালিয়ে এলেও জাতিসংঘের হিসাবে ৪ লাখেরও বেশি মানুষ এখনও সেখানে থেকে গেছে। দ্য গার্ডিয়ানের হিসাব অনুযায়ী, রাখাইনে থাকা অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গার সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ। ২০১২ সালে রাখাইনে সহিংসতা শুরুর পর বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়া জনগোষ্ঠীদের জন্য স্থাপন করা হয় আইডিপি ক্যাম্প। তখন থেকেই এই ক্যাম্পে সহায়তা দিয়ে আসছে জাতিসংঘ। রোহিঙ্গা ও কামান জনগোষ্ঠীর প্রায় এক লাখ ২৮ হাজার সদস্য এসব ক্যাম্পে বসবাস করে। তবে তাদের চলাফেরায় কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে রেখেছে মিয়ানমার সরকার। ২০১৭ সালে রোহিঙ্গাবিরোধী নতুন অভিযান জোরালো করার পাশাপাশি এসব ক্যাম্প বন্ধ শুরুর অঙ্গীকার করে মিয়ানমার সরকার। তবে সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের কোনও পদক্ষেপ দেখা যায়নি। উল্টো অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুতদের পরিস্থিতি দিনকে দিন আরও অবনতির দিকে গেছে। জাতিসংঘ এই সামরিক অভিযানকে ‘জাতিগত নিধনযজ্ঞ’ বলে আখ্যা দেয়।  

জাতিসংঘের দূত গার্ড রোজেনথাল এক বিবৃতিতে বলেন, ‘নিঃসন্দেহে অনেক জাতিসংঘের পদ্ধতিগত অনেক কারণে অনেক ভুল হয়েছে এবং সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে। ৩৪ পৃষ্ঠার ওই অভ্যন্তরীণ পর্যালোচনা প্রতিবেদন থেকে তিনি বলেন, সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধ পরিকল্পনা না নিয়ে বিচ্ছিন্ন কৌশল অবলম্বন করায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

চলতি বছর মিয়ানমারে ২০১০ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘের কর্মকাণ্ড খতিয়ে দেখতে গুয়াতেমালার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী গার্ড রোজেনথালকে নিয়োগ দেন মহাসচিব অ্যান্থনিও গুয়েতেরেস। মিয়ানমারে জাতিসংঘের কর্মকাণ্ড নিয়ে রোজেনথাল বলেন, এটা সমষ্টিগত দায়িত্ব ছিলো। একে সত্যিকার অর্থে জাতিসংঘের পদ্ধতিগত ব্যর্থতা বলা যেতে পারে। তিনি বলেন, নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা মিয়ানমারে বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবেন নাকি কূটনৈতিক তৎপড়তা চালাবেন তা নিয়েই একমত হতে পারছিলেন না। আর তৃণমূল থেকে জাতিসংঘের সদর দফতরে পাঠানো হয়েছে ‘ত্রুটিপূর্ণ’ প্রতিবেদন। 

রোজেনথাল বলেন, জাতিসংঘ তখন মিয়ানমারকে মানবাধিকার লঙ্ঘনে দায়ী করতে এবং একই সাথে উন্নয়ন ও মানবিক সহায়তা দিতে হিমশিম খাচ্ছিলো। তিনি বলেন,মিয়ামারকে মানবাধিকর লঙ্ঘনের জন্য দায়ী করতে যোগ্য ভূমিকা রাখেনি জাতিসংঘ। তবে তাদের উন্নয়নের ব্যাপারে প্রশংসার ব্যাপারে ইতিবাচক ছিলো তারা।জাতিসংঘের দূত বলেন, নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধিত্বে জাতিষংঘের সামষ্টিক সদস্যরািই এরজন্য দায়ী। যখন যেই সমর্থন প্রয়োজন ছিলো তারা সেটা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

আন্তর্জাতিক
মিয়ানমারের সেনাপ্রধানকে নিষিদ্ধ করলো যুক্তরাষ্ট্র

৭১ বছর সংসার একই দিনে মৃত্যু

মিয়ানমারের ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের

চাঁদে ভারতের দ্বিতীয় অভিযান উড্ডয়নের আগে স্থগিত

ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতের পদত্যাগে মার্কিন কূটনীতিক পাড়ায় আতঙ্ক!

বাংলাদেশই শ্রেষ্ঠ শিক্ষক: বান কি মুন

আত্মহত্যার ৩ দিন পর ঘুরে বেড়াচ্ছেন ইনি!

ভারী বৃষ্টিতে ওয়াশিংটনে বন্যা

রাখাইনে হামলায় নিহত ২

ব্রিটিশ সম্মেলনে রোহিঙ্গাদের সহায়তায় জোর দেওয়ার তাগিদ

মাছ উৎপাদনে বিশ্বের ৪র্থ স্থানে বাংলাদেশ- জেলা মৎস্য কর্মকর্তা
জেলার ৫ আ’লীগ নেতাসহ সারাদেশে ২শ’ নেতাকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন
রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীরা প্রশিক্ষিত হচ্ছে
মিন্নির ৫ ‍দিনের রিমান্ড মন্জুর
মিয়ানমারের সেনাপ্রধানকে নিষিদ্ধ করলো যুক্তরাষ্ট্র
নুসরাতের দেওয়া দুই পরীক্ষার ফল ‘এ’ গ্রেড
চট্টগ্রাম বোর্ডে কমেছে পাসের হার:বেড়েছে জিপিএ-৫
এইচএসসিতে পাসের হার ৭৩.৯৩ শতাংশ
৭১ বছর সংসার একই দিনে মৃত্যু
মিয়ানমারের ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের
টেকনাফে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নারী সহ নিহত ৩
ইতিহাসে কী নামে বেঁচে থাকবেন এরশাদ?
শূন্য ঘোষণা এরশাদের সংসদীয় আসন
এইচএসসির ফল প্রকাশ আজ
পাসপোর্ট অফিসে ভূঁয়া বাবাসহ রোহিঙ্গা যুবতী আটক
 

উপদেষ্টা সম্পাদক: আবু তাহের
সম্পাদক: বিশ্বজিত সেন
প্রকাশক: আবদুল আজিজ

 

কক্সবাজার প্রেসক্লাব ভবন (২য় তলা),
শহীন সরণি (সার্কিট হাউস রোড), কক্সবাজার।
ফোন:
০১৮১৮-৭৬৬৮৫৫, ০১৫৫৮-৫৭৮৫২৩।


ইমেইল :

news.coxsbazarvoice@gmail.com
About Coxsbazar Voice
Advertisement
Contact
Web Mail
Privacy Policy
Terms & Conditions
কক্সবাজার ভয়েস পত্রিকার কোন সংবাদ,লেখা,ছবি বা কোন তথ্য পূর্ব অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
All rights reserved © 2019 COXSBAZAR VOICE Developed by : JM IT SOLUTION