বুধবার, ১৯ Jun ২০২৪, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন

দৃষ্টি দিন:
সম্মানিত পাঠক, আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি। প্রতিমুহূর্তের সংবাদ জানতে ভিজিট করুন -www.coxsbazarvoice.com, আর নতুন নতুন ভিডিও পেতে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল Cox's Bazar Voice. ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে শেয়ার করুন এবং কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।

কক্সবাজারে ডিসি সাহেবের বলী খেলায় জুয়ার আসর

বিশেষ প্রতিবেদক:

কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহি ডিসি সাহেবের বলীখেলায় জমজমাট জুয়ার আসর চলছে। এঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিকালে জেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে বন্ধ করে দেয়।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে আবহমান বাংলার ঐহিহ্যবাহী বলী খেলা চলে আসছে দীর্ঘকাল ধরে। এরই প্রেক্ষিতে কক্সবাজারে শুরু হয়েছে ডিসি সাহেবের বলীখেলা। এটি কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ৬৮ তম আসর। কিন্তু, এই ঐতিহ্যবাহি বলী খেলা দিন দিন জৌলুস হারিয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে প্রতিটি আসরে অব্যবস্থাপনা, বিশৃঙ্খলা ও প্রকাশ্যে জুয়ার আসর সহ নানা কারণে বিতর্ক শুরু হয়েছে।

আজ শুক্রবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত ৬৮ তম আসরে মসজিদের সামনে জুয়ার আসর নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। জুমার দিনে মসজিদের সামনে প্রকাশ্যে জুয়ার আসরের কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন তাৎক্ষণিক বন্ধ করে দেয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ১৮ মে বৈশাখী মেলা ও আজ ১৯ মে ও ২০ মে কক্সবাজার শহরের বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম ও তার পাশের এলাকায় শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে ডিসি সাহেবের বলীখেলা ও বৈশাখী মেলা।

জ্যৈষ্ঠের ৫ তারিখ এসে শুরু হওয়া ২ দিন ব্যাপী এই বলী খেলা ও বৈশাখী মেলা ঘিরে শুক্রবার দুপুর থেকে প্রকাশ্যে বসে জুয়ার আসর। আয়োজক প্রতিষ্ঠান জেলা ক্রীড়া সংস্থার কয়েকজন কর্মকর্তার উদ্যোগে স্টেডিয়ামের বাইরে অন্তত ১২ টি জুয়ার আসর দেখা গেছে।

যদিও বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বিভীষণ কান্তি দাশ জানিয়েছিলেন, দুই দিনের এ আসরে নাগরদোলা, হস্তশিল্প, কুটির শিল্প, তাঁত শিল্প, বস্ত্র শিল্প, মৃৎ শিল্প ও দেশীয় সংস্কৃতির নানা পণ্যের সমাহার বসবে মেলায়। থাকবে না কোন প্রকার জুয়ার আসর। কিন্তু হয়েছে তার উল্টো। জুয়ার আসরের জমজমাট হলেও কয়েকটি ছোট দোকান ছাড়া দেখা মিলেনি ঘোষনা দেয়া আয়োজনের।

শুক্রবার দুপুরে জুয়ার আসরের বিষয়টি নিয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বিভীষণ কান্তি দাশের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বিকাল ৪ টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আগেই ঘটনাস্থলে যান। ওই সময় তিনি আশে-পাশে থাকা সকল জুয়ার আসর বন্ধও করে দেন।

এরপর স্টেডিয়ামের অভ্যন্তরে শুরু হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। যেখানে প্রধান অতিথি কক্সবাজার রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন, বলী খেলা ও বৈশাখী মেলা হওয়া ভাল। কিন্তু এটাকে পুঁজি করে জুয়া বা অশ্লিলতা মেনে নেয়া হবে না।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বিভীষণ কান্তি দাশ, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: আবু সুফিয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রফিকুল ইসলাম সহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর কয়েক জোড়া বলী খেলায় অংশ নিলেও দেখা মিলেনি আলোচিত কোন বলীর। একই সঙ্গে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর অতিথিরা চলে গেছে সন্ধ্যায় ফের জুয়ার আসর শুরু হয়।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বিভীষণ কান্তি দাশ জানিয়েছেন, জুয়ার আসর বন্ধ করা হয়েছে। আবার করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে, ঐতিহ্যবাহী ডিসি সাহেবের বলী খেলায় দূর-দূরান্ত থেকে আসা অসংখ্য বলী স্টেডিয়ামের ফটকে আটকে দিলে অনেকে হয়রানির শিকার হয়। পরে স্টেডিয়ামস্থলে যেখানে বলীরা খেলায় অংশ নেয় সেখানে দেখা দেয় নানা বিশৃঙ্খলা। অসংখ্য মানুষের ভিড়ে বলীরা অংশ নিলেও পুরস্কৃত করা হয় ১০০/২০০ টাকায়। এনিয়ে অনেকেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক বলী জানিয়েছেন, দূর-দুরান্ত থেকে আগত বলীদের অব-মূল্যায়ন করা হয়েছে। এই নিয়ে এসব বলীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তাদের যেমন বিষদাগার করেছেন, তেমনি ডিসি সাহেবের বলী খেলা জৌলুস হারানোর কথাও বলছেন তারা।

ভয়েস/আআ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2023
Developed by : JM IT SOLUTION